তিতলি ছুটে এসে আমাকে তার বুকের সঙ্গে জড়িয়ে ধরে চুমু দিতে লাগলো। আমি ওকে ছাড়িয়ে দিয়ে বললাম, তোমার ঠোঁটের লিপস্টিক মুছে এসো, শার্টে যদি দাগ পড়ে তবে আর রক্ষে থাকবে না। অনিন্দসুন্দরী টগবগে যুবতী তিতলি আমাকে ছেড়ে দিয়ে নিজে কাপড়-চোপড় খুলতে লাগলো। আমিও আমার সব কাপড় খুলে পাশের চেয়ারে ঝুলিয়ে রাখলাম। আমি বিছানায় এসে হেলাম দিতেই তিতলি এসে আমার হুমড়ি খেয়ে লিঙ্গটা মুখে নিয়ে চুষতে লাগলো। আর আমিও ওকে বুকের সঙ্গে আলিঙ্গন করে ধরলাম। ওর ঠোঁটে, গালে, কপালে চুম্বন করলাম। ওর স্তনজোড়া চুষতে লাগলাম। এক সময় আমরা দু’জনই উত্তেজনায় অস্থির হয়ে পড়লাম আর তিতলি আমার উপড়ে চড়ে বসে সঙ্গম শুরু করে দিল। মৃদৃ তালে পূর্নযৌবনা তিতলির কোমর দুলে দুলে সঞ্চালিত হতে লাগলো। আমি সেই অদ্ভূৎ শিহরণ দেহ-মনে অনুভব করতে লাগলাম। উভয়ের অজান্তেই উহ্*- আহ্* করে অব্যক্ত অনুভূতিসুচক শব্দ বের হতে লাগলো। তিতলি অস্ফুট স্বরে বলতে লাগলো, তোমার মধ্যে এত সুখ কোথায় লুকিয়ে রাখো! আমাকে এত সুখ কি করে তুমি দাও!
এভাবে কিছুক্ষণ চলার পর তিতলির উন্মুক্ত যোনিগহ্বরে উষ্ণ বীর্য স্খলন ঘটে গেল। আর তখন চরম ভালোলাগার ভেতর দিয়ে আমি ওকে বুকের সঙ্গে লেপ্টে জড়িয়ে ধরে রাখলাম। আমার মনে হতে লাগলো, ওর স্বামীর দীর্ঘ মোটা লিঙ্গের বেপরোয়া চালনায় তিতলির যোনিপথ যেভাবে প্রশস্ত হয়ে পড়েছিল তা যেন হঠাৎ করেই আজ আবার সঙ্কুচিত হয়ে পড়েছিল। আমি যেন আগের সেই তিতলির মধ্যে ডুবে গেলাম যে তিতলি আমাকে নতুন জীবনের সন্ধান দিয়েছিল। সবই হয়তো আমার মনের ভুল!
তিতলি পরিশ্রান্ত দেহটা তুলে যখন বিযুক্ত হলো তখন ওর যোনি থেকে তপ্ত বীর্য ফোঁটা ফোঁটা করে আমার উরুর ওপর পড়তে লাগলো। আমি সাইড টেবিল থেকে একটা টিসুপেপার টেনে ওর হাতে ধরিয়ে দিলাম। তিতলি টিসুপেপার দিয়ে আমার উরু মুছে নিজের যোনিতে চেপে ধরলো।
এরপর তিতলি আমাকে জিজ্ঞেস করলো, তোমার কি ভালো লেগেছে?
আমি আহ্লাদের সঙ্গে অনুচ্চ স্বরে বললাম, দারুণ লেগেছে! অপূর্ব লেগেছে, তিতলি! তিতলি আবার বললো, কতদিন পরে আমরা আবার মিলিত হলাম, তুমি কি বুঝতে পারছো না?আমি বললাম, হ্যাঁ, একমাস পর।তিতলি বললো, না, তারও বেশি, একমাস চারদিন। আর আমি কিন্তু আমার স্বামীর কাছে কখনো যাব না। আমি শুধু তোমার থাকতে চাই। তোমার যেদিন সময় হবে সেদিনই কেবল আমরা মিলিত হব।আমি বললাম, ঠিক আছে, তাই হবে।আমি বিছানা থেকে উঠে বাথরুমের দিকে যাচ্ছিলাম, তিতলি জানতে চাইলো, কি ব্যাপার, আরেকবার হবে না? -হবে …বলে আমি বাথরুমে ঢুকলাম, আমার পেছনে পেছনে তিতলিও প্রবেশ করলো বাথরুমে। দু’জনেই প্রস্রাব করলাম। যৌনাঙ্গ সাবান দিয়ে ধুয়ে আবার আমরা বিছানায় এসে শুয়ে পড়লাম। কিছুক্ষণ পরে তিতলি আমার লিঙ্গ নিয়ে আবার খেলতে শুরু করে দিল। মুখে নিয়ে অবিরাম চুষতে চুষতে আবার লিঙ্গটাকে শক্ত উত্তেজিত করে তুললো। এবার আমি ওকে চিৎ করে শুইয়ে দিয়ে ওর পা দু’খানা আমার কাঁধে তুলে নিয়ে তীব্রভাবে সঙ্গমে লিপ্ত হলাম। ঘন তালের সেই অঙ্গচালনায় তিতলি কেঁপে কেঁপে উঠতে লাগলো। তিতলি বলতে লাগলো, ওহ্*, তুমি আমাকে পাগল করে দিয়েছো, আমি কী যে একটা সুড়সুড়ি অনুভব করছি, আমার কী যে ভালো লাগছে, জোরে জোরে কর, আরও জোরে কর …ঘণ তালের সঙ্গম আমি আরও দ্রুততর করলাম। তিতলি বললো, হ্যাঁ, ওভাবে কর। দারুণ, দারুণ তুমি। তোমার মতো সুখ আমাকে কেউ দিতে পারবে না। তোমার মতো ভালোবাসা কেউ আমাকে দেবে না। এ পৃথিবীতে শুধু তুমিই আছ, যে আমাকে বুঝতে পারে, অন্য কেউ আমাকে কোনোদিন বুঝবে না।
তিতলি আমাকে দু’বাহু দিয়ে ওর বুকের সঙ্গে আগলে রেখে হঠাৎ বললো, ইস! তুমি ঘেমে কী হয়েছ! তোমার কি কষ্ট হচ্ছে? আমি বললাম, না, কষ্ট কোথায়, এতে আবার কষ্ট কি? তিতলি তবুও আমার পিঠে হাত বুলাতে লাগলো, না, তোমার নিশ্চয়ই কষ্ট হচ্ছে! তুমি থামো, আমি করছি। ওর কথায় আমি উঠলাম না। এতক্ষণ আমি বসে বসে করছিলাম, এবার পা দুটি পেছনে বিছিয়ে দিয়ে তিতলিকে বুকের সঙ্গে জড়িয়ে রেখে মৃদুতালে অঙ্গচালনা করতে লাগলাম। তিতলি নিজের স্তনযুগল ধরে আমার মুখের মধ্যে পুরে দিয়ে বললো, মুখে নাও। আমি একটা স্তন হাতে ধরে অন্যটা মুখের ভিতর নিয়ে চুষতে চুষতে কোমরের গতি বাড়ালাম। সময় ঘণিয়ে এলো। আমরা দু’জনই ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলাম। তিতলি জিজ্ঞেস করলো, তোমার কি হয়ে গেছে? আমি বললাম, না। এখন আর সময়ও নেই। চল, আজ এখানেই শেষ করি।তিতলি বললো, আমারও বিরক্ত লাগছে।